1. kamruzzaman78@yahoo.com : kamruzzaman Khan : kamruzzaman Khan
  2. ssexpressit@gmail.com : savarsangbad :
বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১০:০০ অপরাহ্ন

বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের কর্মসূচি দেবার অধিকার আছে

  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০২৩

সংবাদ রিপোর্ট: আগামী ২৮ অক্টোবরের সমাবেশে নাশকতার চেষ্টা করলে বিএনপি নেতাকর্মীদের ঢাকায় ঢুকতে দিলেও বের হতে দেওয়া হবেনা বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ফারুক হাসান তুহিন। ২০ অক্টোবর শুক্রবার বিকেলে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী হিসেবে আয়োজিত এক গনসংযোগ কর্মসূচি শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে এই কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, বিএনপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক দলের কর্মসূচি দেবার অধিকার আছে এটা আওয়ামী লীগ বিশ্বাস করে রাস্তায় মিটিং করা মিছিল করা তাদের রাজনৈতিক অধিকার। আপনারা দেখেছেন গত ১৮ তারিখে বিএনপি সমাবেশ করেছে সেখানে আওয়ামী লীগ কি কোন বাধা দিয়েছে? তাদেরকে কোথাও কি লাঠিচার্জ করেছে? ছাত্রলীগ যুবলীগের কোন নেতাকর্মী তাদেরকে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে? করে নাই কারণ আগেই আমাদের কাছে তথ্য ছিল বিএনপি ১৮ তারিখের সমাবেশে শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করবে এই কারণে কোনরূপ বাধা প্রতিবন্ধকতা কোন কিছু ছাড়াই তারা সেই সমাবেশটি করেছে। কিন্তু আমাদের কাছে বিভিন্ন এজেন্সির মাধ্যমে ও দলীয় সূত্রে খবর এসেছে ২৮ তারিখের সমাবেশে তাদের জ্বালাও পুড়াও সহ বিভিন্ন ব্যাংক লুট করার পরিকল্পনা এবং সরকারি বিভিন্ন স্থাপনায় হামলা করার তাদের প্রস্তুতি আছে। তারা যদি কর্মসূচিটা রাজনৈতিকভাবে করে কোনো হাঙ্গামা না করে তাহলে তাদের ঢাকায় যাওয়ারও সুযোগ দেওয়া হবে এবং ঢাকা থেকে এক্সিটেরও সুযোগ দেওয়া হবে। কিন্তু এটিকে তারা যদি নাশকতার দিকে নিয়ে যায় তাহলে যাওয়ার এক্সিট থাকবে তবে বের হবার এক্সিটে অবশ্যই প্রতিবন্ধকতায় পরতেই হবে। কারণ সাধারণ মানুষের জানমালের নিরাপত্তা দেওয়া সরকার এবং সরকারি দলের লোকজনের দায়িত্ব এবং কর্তব্য।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে বিএনপি’র নেতারা যে সকল দেশের রাষ্ট্রদূতদের বাসায় বাসায় ঘুরছে সেই সব রাষ্ট্রদূতেদের যে দেশ আছে সেই দেশে কি প্রক্রিয়ায় নির্বাচন হয়? অবশ্যই তাদের সংবিধান মোতাবেক, তাদের গঠনতন্ত্র মোতাবেক, তাদের নির্বাচন কমিশনের রায় মোতাবেক নির্বাচন হয়। আমরাও মনে করি বাংলাদেশে সংবিধান আছে, স্বাধীন নির্বাচন কমিশন আছে। বিএনপি তাদের সাথে যদি কোন আলোচনা করতে চায় তারা করতে পারে। নির্বাচন সঠিক সময়ে সংবিধানের আলোকে এবং সংবিধান মেনেই অনুষ্ঠিত হবে। এতে কে আসলো কে আসলো না এটা তাদের রাজনীতি কৌশলের বিষয়। এই যে তারা সব সময় ইসলামের কথা বলে আজকে যে ফিলিস্তিনির উপর এত হামলা হচ্ছে, নির্যাতন হচ্ছে তারা কেন একটা বিবৃত দিল না? তারা কেন চুপ? আজকে শেখ হাসিনা তো ফিলিস্তিনিদের জন্য সাহায্য পাঠাচ্ছে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা ফিলিস্তিনের উপর নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার আছে। আমাদের বিদেশি যারা বন্ধু আছে তারা আমাদের পরামর্শ দিতেই পারে এটা নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কোন চাপ অনুভব করছে না।তারা দশটা পরামর্শ দিলে এর মধ্যে যেটা সঠিক এবং দেশ ও দশের জন্য কল্যাণকর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তাদের সেই পরামর্শ অবশ্যই গ্রহণ করবে।
বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলার অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আপনি রাজনৈতিক কর্মী, বিরোধী দলের রাজনীতি করতে হলে মামলা হবে এটি মেনেই রাজননীতি করতে হয়। আপনি বিরোধী দলের রাজনীতি করবেন আর ফাইভ স্টার হোটেলে গিয়ে ঘুমাবেন এটার নাম বিরোধী দল নয়। বিরোধী মানেই হচ্ছে সংগ্রাম আর সংগ্রাম মানেই হচ্ছে যুদ্ধ সেই যুদ্ধ করতে গিয়ে আপনি মামলা হামলার শিকার হবেন আর মামলা হলে গ্রেফতার হবেন এটাই নিয়ম। আমরাও বিরোধী দলে থাকা কালীন মামলা হামলার শিকার হয়েছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও সংবাদ :